রাতে সৌমিত্রবাবুকে ঘুম থেকে তুলে মানিকদা বললেন ‘সৌমিত্র! তোমার সেই লুঙ্গিটা আছে?’

রাতে সৌমিত্রবাবুকে ঘুম থেকে তুলে মানিকদা বললেন ‘সৌমিত্র! তোমার সেই লুঙ্গিটা আছে?’

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় তখন কেরিয়ারের মধ্যগগনে বলা যায়।
অত্যন্ত কাছের হওয়া সত্ত্বেও সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়কে শৃঙ্খলার প্রশ্নে এক ইঞ্চি জায়গা ছাড়েননি পরিচালক সত্যজিৎ রায়।

ঘটনাটি জানতে নিশ্চয়ই আগ্রহী হয়ে পড়েছেন……..চলুন শোনা যাক———

ক্যামেরা রেডি। ‘জলসাঘর’খ্যাত নিমতিতায় মেক আপ নিয়েছেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়।

ঠিক এমন সময় মানিকবাবু সকলের সামনে বলেছিলেন, ‘সৌমিত্র, ডায়লগ শিটগুলো এনেছ? ‘

উত্তরে সৌমিত্রবাবু ‘না’ বললে সত্যজিৎবাবুর আদেশ ছিল, ‘ যাও, নিয়ে এসো।’

বাধ্য ছাত্রের মতো প্রায় এক মাইল হেঁটে ডায়লগ শিটগুলো আনতে বাধ্য হয়েছিলেন সৌমিত্রবাবু।

আরো পড়ুন:  দীনবন্ধু মিত্রের নীলদর্পণ নাটক দেখে রাগে মঞ্চে জুতো ছুঁড়ে মেরেছিলেন বিদ্যাসাগর

কোন বাংলা চলচ্চিত্রের শুটিংয়ে এই ঘটনা ঘটেছিল জানেন?
জানিয়ে রাখি, ছবির মুক্তির তারিখ ছিল ১৯ ফেব্রুয়ারি, ১৯৬০ । আলি আকবর খানের সঙ্গীত পরিচালনায় মুক্তি প্রাপ্ত এই ছবির কাহিনীকার ছিলেন প্রভাত কুমার মুখোপাধ্যায় । ছবির নাম ‘দেবী ‘ |

সত্যজিৎবাবুর মতো মানুষও বোধহয় একবার ভয় পেয়েছিলেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়কে। অবাক হচ্ছেন! অন্তত এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে এমনটা মনে হতেই পারে।
চলুন হেঁয়ালি না করে কাজের কথায় আসা যাক——

আরো পড়ুন:  মা দুর্গার রূপে সন্তান কোলে মা,পরিযায়ী শ্রমিকদের সম্মান জানাতে অভিনব উদ্যোগ বেহালার বড়িশা ক্লাব দুর্গাপুজো কমিটির

‘অরণ্যের দিনরাত্রি’-র শুটিংয়ে সত্যজিৎবাবু হাজির তাঁর দলবল নিয়ে। শুটিং স্পট পালামৌর বেতলা জঙ্গল। প্রচণ্ড গরম। সত্যজিৎবাবুর খেয়াল হল তাড়াহুড়োয় পাজামা আনতে ভুলে গিয়েছেন। তৎক্ষণাৎ পাজামা নতুন করে বানানো সম্ভব নয় কেননা দীর্ঘদেহী মানিকবাবুর পাজামা গায়ে তোলার মতো পাজামা ইউনিটের কেউ পরতেন না।

এগিয়ে এসেছিলেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। সঙ্গে থাকা বিশাল বার্মিজ লুঙ্গির প্রসঙ্গ তুলে বলেছিলেন, ‘আমার বেশ বড় হয়, বুকের কাছাকাছি, সুতরাং আপনার হয়ে যাবে, আপনি পরবেন? ‘
মানিকবাবু তৎক্ষণাৎ এড়িয়ে গিয়েছিলেন।

আরো পড়ুন:  বঙ্গললনা সমদীপ্তা মুখোপাধ্যায়ের সুরের জাদুতে মুগ্ধ হলেন লতা মঙ্গেশকর, পেলেন প্রশংসা

মাঝরাতে সৌমিত্রবাবু যখন ঘুমে অচেতন, তখন সত্যজিৎবাবু বেশ ভয় ভয় মুখে ঘুম থেকে তুলিয়ে সৌমিত্রবাবুর উদ্দেশ্যে বলেছিলেন,’সৌমিত্র! তোমার সেই লুঙ্গিটা আছে? ‘

সেইসঙ্গে অসহায়ের মতো বলেছিলেন, ‘ এ বস্তু কীভাবে পরতে হয়? ‘

যদিও লুঙ্গি পরার স্মৃতি সুখকর ছিল না। পরদিন বলেছিলেন, ‘লুঙ্গি পরে কারো কখনো ঘুম হয়? ‘

লেখক : পবিত্র মুখোপাধ্যায়

Avik mondal

Avik mondal

Related post

করোনাকে না করো

ভাইরাসের কবলে আজ সারা বিশ্ব,গৃহবন্দী বিশ্ববাসী।বন্ধ দ্বার খুলতে তাই নিজেদের সুরক্ষিত রাখুন,হাত ধুয়ে নেমে পড়ুন এই ভাইরাস দমনে।