অনেক হয়েছে,মাত্র ৩৮ বছর বয়সেই কবিতা লেখা ছেড়ে দিলেন সমর সেন

অনেক হয়েছে,মাত্র ৩৮ বছর বয়সেই কবিতা লেখা ছেড়ে দিলেন সমর সেন

বিখ্যাত সাহিত্যিক ও শিক্ষাবিদ দীনেশচন্দ্র সেন ছিলেন তাঁর পিতামহ । বারো বছর বয়সে হারিয়েছিলেন নিজের মা কে । তারপর পিতা আবার বিবাহ করেন । এরই মাঝে মাত্র সতেরো বছর বয়সে আন্তর্বিশ্ববিদ্যালয় পত্রিকা শ্রীহর্ষে প্রথম ছাপা হয় তাঁর কবিতা । এরপরেই বুদ্ধদেব বসুর সঙ্গে পরিচয় এবং ‘কবিতা’ পত্রিকায় সম্পাদক পদ লাভ । কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তাঁর কবিতা পড়েই চিঠিতে লিখছেন — ‘এঁর লেখা ট্যাঁকসই হবে বলেই বোধ হচ্ছে’ । তিনি সমর সেন । ৭১ বছরের জীবনে তিনি কাব্যসাধনা করেন মাত্র ১২ বছর । আর তাঁর শেষ কবিতা যখন বের ১৯৫৪ সালে । ১৯৫৪ সালে সিগনেট থেকে বেরল ‘সমর সেনের কবিতা’ । তখন কবির বয়স মাত্র ৩৮ বছর । এরপর তিনি আর মন থেকে কবিতা লেখেননি । বাজি ধরে দু’-একটি খুচরো কবিতা লিখলেও কবিতার ব্যাপারে একদম উদাসীন হয়ে পড়লেন তিনি । সমর সেনের এই কবিতাকে ছুটি দেওয়া চিরতরে বিস্ময়কর ব্যাপার । অনেক অনুরোধ সত্ত্বেও তিনি আর কবিতা লেখেননি । অথচ লন্ডনে TLS-এ এডোয়ার্ড টমসন আধুনিক ভারতীয় কবিতা নিয়ে বলতে গিয়ে সমর সেনের দুটি কবিতার অনুবাদ করে সকলকে শুনিয়েছিলেন ।

আরো পড়ুন:  রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জীবন নিয়ে বিদেশে বক্তৃতাও দিয়েছিলেন কুস্তিতে প্রথম ভারতীয় বিশ্বচ্যাম্পিয়ন এই বঙ্গসন্তান

সমর সেনের জন্ম ১৯১৬ সালের ১০ অক্টোবর । পড়তেন স্কটিশ চার্চ কলেজে । কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের এম.এ পরীক্ষায় প্রথম শ্রেনীতে প্রথম হন তিনি । কর্মজীবনে লেখালিখির পাশাপাশি বেশ কিছুদিন অধ্যাপনা করেন । এরপর সাংবাদিকতাও করেন । স্টেটসম্যান পত্রিকার সহ-সম্পাদক ছিলেন। ১৯৫৭ সালে অনুবাদকের কাজ নিয়ে সোভিয়েত ইউনিয়ন যান। বহু রাশিয়ান সাহিত্যের বাংলা অনুবাদ করেছিলেন সমর সেন । ১৯৬১ সালে দেশে ফিরে একটি বিজ্ঞাপনী সংস্থায় কাজ করতেন । তারপর হিন্দুস্থান স্ট্যান্ডার্ড পত্রিকায় কাজ করেছেন । মায়ুন কবিরের ইংরেজি পত্রিকা ‘নাও’ এর সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন । সেখানে মতবিরোধ দেখা দিলে নিজেই ফ্রন্টিয়ার নামক ইংরেজি পত্রিকা প্রকাশ করতে থাকেন । যতদিন বেঁচে ছিলেন ততদিন ফ্রন্টিয়ার পত্রিকার দায়িত্ব সামলেছেন ।

আরো পড়ুন:  করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রয়াত হলেন বাঙালিত্ব গবেষণা উদ্যোগের প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি ভাষাযোদ্ধা কবি পার্থসারথি বসু

পাঁচটি কাব্যগ্রন্থ লিখেছিলেন সমর সেন । তার কাব্যগ্রন্থগুলো হচ্ছে কয়েকটি কবিতা (১৯৩৭), গ্রহণ (১৯৪০), নানা কথা (১৯৪২), খোলা চিঠি (১৯৪৩) এবং তিন পুরুষ (১৯৪৪) । তার কবিতাসংগ্রহ সমর সেনের কবিতা ১৯৫৪ সালে প্রকাশিত হয়। ‘কবিতা’ পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন। ব্যতিক্রমী ও নিজস্ব বৈশিষ্টতায় অনন্য ছিলেন । কবিতায় রোমান্টিকতা বর্জন করে লিখতেন শ্রমজীবী মানুষের লড়াইয়ের কথা , বাস্তবতার কথা ।

আরো পড়ুন:  শ্রীরামকৃষ্ণের সাথে কথোপকথনের স্টেনোগ্রাফিক রেকর্ড থেকেই লিখলেন শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণকথামৃত

১৯৮৭ সালের ২৩ আগস্ট প্রয়াত হন সমর সেন । তিনি নেই কিন্তু রয়ে গিয়েছে তাঁর অমর সৃষ্টি ।

তুমি কি আসবে আমাদের মধ্যবিত্ত রক্তে
দিগন্তে দুরন্ত মেঘের মতো!
কিম্বা আমাদের ম্লান জীবনে তুমি কি আসবে,
হে ক্লান্ত উর্বশী,
চিত্তরঞ্জন সেবাসদনে যেমন বিষণ্ণমুখে
উর্বর মেয়েরা আসে;
কত অতৃপ্ত রাত্রির ক্ষুধিত ক্লান্তি,
কত দীর্ঘশ্বাস,
কত সবুজ সকাল তিক্ত রাত্রির মতো,
আরো কত দিন !

-অভীক মণ্ডল
তথ্য : প্রবাস,উইকিপিডিয়া

Avik mondal

Avik mondal

Related post

Leave a Reply

করোনাকে না করো

ভাইরাসের কবলে আজ সারা বিশ্ব,গৃহবন্দী বিশ্ববাসী।বন্ধ দ্বার খুলতে তাই নিজেদের সুরক্ষিত রাখুন,হাত ধুয়ে নেমে পড়ুন এই ভাইরাস দমনে।