স্বপ্ন ছিল স্বাধীনতা সংগ্রামী হওয়ার,কলকাতার বিভিন্ন ক্লাবে ভাড়ায় ফুটবলও খেলতেন কালী বন্দ্যোপাধ্যায়

স্বপ্ন ছিল স্বাধীনতা সংগ্রামী হওয়ার,কলকাতার বিভিন্ন ক্লাবে ভাড়ায় ফুটবলও খেলতেন কালী বন্দ্যোপাধ্যায়

ছোটবেলায় ভালোবাসতেন খেলাধুলা | বক্সিং, লাঠিখেলা, ছোরাখেলা, জিমন্যাস্টিক সবেতেই ছিলেন পারদর্শী | তবে ফুটবলটা একটু বেশী ভালবাসতেন | কলকাতার বিভিন্ন ক্লাব তাঁকে ভাড়া করে নিয়ে যেত পাড়ার ফুটবল টুর্নামেন্টের জন্যে | ম্যাচের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার তিনিই পেতেন | একবার এরকমই এক টুর্নামেন্টে তাঁর খেলা দেখে মুগ্ধ হয়েছিলেন স্বয়ং গোষ্ঠ পাল | বন্ধুরা ধরেই নিয়েছিলেন বড় হয়ে ময়দান কাঁপাবেন তিনি | দেশে তখন ব্রিটিশরাজ | কলকাতা হয়ে উঠেছে বিপ্লবীদের অন্যতম ঘাঁটি | তিনিও তখন স্বাধীনতার সৈনিক হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন | পাশাপাশি চলছে নাটক | একদিন হঠাৎ সব ছেড়ে চলে গেলেন পাঞ্জাবে | লক্ষ্য আর্মি অফিসার হবেন | কিন্তু বাবার আপত্তিতে ফিরে এলেন | কয়েকমাস পরে এয়ারফোর্সে যোগ দিতে গেলেন দিল্লি | কাছ থেকে দেখলেন ভারত ছাড়ো আন্দোলনকে দমন করতে সাধারণ মানুষদের উপর ব্রিটিশদের অত্যাচার | ঠিক করলেন যারা দেশের মানুষের উপর এত অত্যাচার করছেন তাদের পক্ষ নিয়ে যুদ্ধে যাবেন না | ফিরে এলেন কলকাতায় | শুরু করলেন অভিনয় | বাকিটা ইতিহাস |

আরো পড়ুন:  নতুন পালক কলকাতার মুকুটে,দেশের প্রথম ট্রাম লাইব্রেরি যাত্রা শুরু করল কলকাতায়

তিনি কালী বন্দ্যোপাধ্যায় | তাঁর নাম বললেই মনে আসে বরযাত্রী,লৌহকপাট,পরশপাথর,বাড়ি থেকে পালিয়ে,হাঁসুলীবাঁকের উপকথা ইত্যাদি চলচ্চিত্রের কথা | কেউ কি ভুলতে পারে নীল আকাশের নীচের ওয়াংলুর কথা কিংবা অযান্ত্রিকের বিমলের কথা | কালী বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম ১৯২০ সালের ২০ নভেম্বর কলকাতার কালীঘাটে | বাবা মণীন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় ছিলেন আইনজীবী | মা ভবানীদেবী | কালী লন্ডন মিশনারিতে প্রাথমিক এবং সত্যভামা ইনস্টিটিউশন থেকে ম্যাট্রিকুলেশন পাশ করেন | পড়তেন রিপন কলেজে (বর্তমান সুরেন্দ্রনাথ কলেজ) | কিন্তু পড়াশোনার থেকে খেলাধুলাই ছিল কালী বন্দ্যোপাধ্যায়ের পছন্দের | কালী বন্দ্যোপাধ্যায়ের জীবনে বড়দা নরেন বন্দ্যোপাধ্যায় আর মেজদা রমেন বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রভাব ছিল খুব বেশী | বড়দাকে দেখেই তিনি খেলাধুলার প্রতি আকৃষ্ট হন আর মেজদা তাকে দিয়েছিলেন রাজনৈতিক দীক্ষা | পাশাপাশি করতেন নাটকে অভিনয় | ‘কেদার রায়’ নাটকে কার্ভালো-র চরিত্রে অভিনয় করে পুরস্কার পেলেন | পরই বন্ধুদের মধ্যে তাঁর নাম হয়ে গেল, ‘কার্ভালো কালী’ |

আরো পড়ুন:  "বহিরাগত" উত্তমকুমারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছিল বোম্বাইয়ের শিল্পীরা,দেনার দায়ে উত্তমকুমারকে বিক্রি করতে হয়েছিল আলিপুরের বাড়ি

সেনাবাহিনীর চাকরির স্বপ্নকে ছেড়ে দিল্লি থেকে কলকাতায় ফিরে নিজেই নাটকের দল বানালেন কালী বন্দ্যোপাধ্যায় | মিনার্ভা থিয়েটারে আবার অভিনীত হল ‘কেদার রায়’ নাটক | কার্ভালো চরিত্রে অভিনয় করে প্রশংসা পেলেন দর্শকদের | সেই সূত্রেই আলাপ হল মহেন্দ্র গুপ্তর সঙ্গে | মহেন্দ্র গুপ্তর পরিচালনায় অভিনয় করলেন কিছু নাটকে | এসময়েই যুক্ত হয়ে পড়েন গণনাট্য সংঘের সঙ্গে | পাশাপাশি রাজনীতিও করতেন | ভারতের কমিউনিস্ট পার্টির সদস্যও ছিলেন কালী বন্দ্যোপাধ্যায় | আই পি টি এ-তে যোগ দিয়েছিলেন কালী বন্দ্যোপাধ্যায় | ক্রমশঃ ‘নয়ানপুর’, ‘সংকেত’, ‘ভাঙাবন্দর’, ‘বিসর্জন’ ‘দলিল’ নাটকে অভিনয় করে দর্শকদের নিজের জাত চেনাতে লাগলেন তিনি |

১৯৪৭ সালে বর্মার পথে কালী বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রথম চলচ্চিত্র | তবে ১৯৫২ সাল থেকেই বাংলা চলচ্চিত্রে নিয়মিত অভিনয় করতে শুরু করেন কালী বন্দ্যোপাধ্যায় | প্রথমবার নজর কাড়েন বরযাত্রী সিনেমায় ‘গনশা’র চরিত্রে অভিনয় করে | নীল আকাশের নিচে, অযান্ত্রিক, হাঁসুলি বাঁকের উপকথা, বাদশা, ডাকহরকরা, পরশপাথর, বাড়ী থেকে পালিয়ে, পুতুল নাচের ইতিকথা, নাগরিক ইত্যাদি ছবিতে প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন তিনি | পরবর্তী কালে দাদার কীর্তি, গুরুদক্ষিণা ইত্যাদি বাণিজ্যিক ছবিতেও দুর্দান্ত অভিনয় করেছেন কালী বন্দ্যোপাধ্যায় | কাজ করেছেন সত্যজিৎ রায়, তপন সিনহা, ঋত্বিক ঘটকের সঙ্গেও |

আরো পড়ুন:  গান গেয়ে বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধা ও উদ্বাস্তুদের জন্য অর্থ সংগ্রহ করেছিলেন গীতশ্রী সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায়

প্রায় দেড়শো ছবিতে কাজ করেছেন কালী বন্দ্যোপাধ্যায় । নাটক করেছেন একত্রিশটি । ১৯৫৬ সাল থেকে সংকটকাল কাটিয়ে কালীবাবু স্থিতু হন বাংলা নাটক ও সিনেমার নির্ভরযোগ্য চরিত্রাভিনেতা হিসেবে। কালী বন্দ্যোপাধ্যায় সব মিলিয়ে প্রায় দেড়শো ছবিতে কাজ করেছেন। নাটক করেছেন একত্রিশটি | তপন সিংহর অভিমত, “দুঃখ এটাই যে, ওঁকে ঠিকমতো ব্যবহার করতে পারল না টালিগঞ্জ।”

অনেক সিনেমায় পার্শ্বচরিত্রে অভিনয় করেছেন কালী বন্দ্যোপাধ্যায় | আসলে কালের থেকে অনেক এগিয়ে ছিলেন তিনি | ১৯৯৩ সালের ৫ জুলাই প্রয়াত হন কালী বন্দ্যোপাধ্যায় |

তথ্য : আনন্দবাজার পত্রিকা (সুদেষ্ণা বসু),উইকিপিডিয়া

Avik mondal

Avik mondal

Related post

করোনাকে না করো

ভাইরাসের কবলে আজ সারা বিশ্ব,গৃহবন্দী বিশ্ববাসী।বন্ধ দ্বার খুলতে তাই নিজেদের সুরক্ষিত রাখুন,হাত ধুয়ে নেমে পড়ুন এই ভাইরাস দমনে।