এই মহামিলনের ক্ষনে সেই চিরনতুন এর টানে….প্রায় ৭৫ বছর ধরে বঙ্গজীবনের অঙ্গ শালিমার

এই মহামিলনের ক্ষনে সেই চিরনতুন এর টানে….প্রায় ৭৫ বছর ধরে বঙ্গজীবনের অঙ্গ শালিমার

“মেরা পেয়ার শালিমার” ব্র্যান্ডটির বিজ্ঞাপনের থিম সঙ ছিল একসময়, গানটা শোনেননি,এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া মুশকিল ৷ ঠিক তেমনই বোধহয় শালিমারের নারকেল তেল ব্যবহার করেননি এমন পরিবার খুঁজে পাওয়া যাবে না ! একটা বাঙালি ব্র্যান্ড ৭৫বছরের বেশি সময় ধরে বাংলা,ভারত ছাড়িয়ে বিদেশেও আজ সমানভাবে সমাদৃত ৷

কবি জীবনানন্দ দাশ লিখেছিলেন,

“চুল তার কবেকার অন্ধকার বিদিশার নিশা,
মুখ তার শ্রাবস্তীর কারুকার্য; অতিদূর সমুদ্রের পর
হাল ভেঙ্গে যে নাবিক হারায়েছে দিশা
সবুজ ঘাসের দেশ যখন সে চোখে দেখে দারুচিনি-দ্বীপের ভিতর,
তেমনি দেখেছি তারে অন্ধকারে; বলেছে সে, ‘এতদিন কোথায় ছিলেন?’
পাখির নীড়ের মত চোখ তুলে নাটোরের বনলতা সেন।”

আমাদের দেশের সাহিত্যে কাব্যে সেই প্রাচীনকাল থেকেই নারীর সৌন্দর্যের সাথে তার চুলের বর্ণনা অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িয়ে আছে। সংস্কৃত সাহিত্যের নায়িকারা সম্ভাষিত হয়েছেন কখনও সুকেশী, কখনও চারুকেশী কখনও বা মুক্তকেশী নামে। আর তাদের চুলের প্রশংসায় শব্দেরই বা ছড়াছড়ি কত রকমের। কুন্তলকলাপ, চিকুরকদম্ব, কেশাবলী, কেশবৃন্দ, চিকুরভার।বাংলার প্রাচীন জনপদ থেকে শুরু করে আজ পর্যন্ত মা-মেয়ের যে মায়া ভরা ছবি আমাদের চোখে ভেসে ওঠে, সেখানে আছে পরম মমতায় মেয়ের মাথায় মায়ের তেল দিয়ে দেওয়ার ছবিটাও। যুগ যুগ ধরে বাঙালি নারীরা চুলের যত্নে, চুলের বাহারে ব্যবহার করে আসছেন নারকেলের তেল। আর সেই নারকেল তেলের ব্র্যান্ড যদি জনপ্রিয় ব্র্যান্ড শালিমারের হয়,তবে চোখ-কান বুঝে বোধহয় ভরসা করা যায় ৷ শালিমার ব্র্যান্ড দীর্ঘ ৭৫ বছরের বেশি সময় ধরে ভারতের কোটি কোটি মানুষের বিশ্বাস আর আস্থা অর্জন করতে পেরেছে তাদের গুণগত মানের জন্য। পৃথিবীর সেরা নারকেল জন্মায় তামিলনাড়ু ও কেরালায় আর সেই নারিকেল দিয়ে তৈরি হয় শালিমারের নারকেল তেল। সংস্থার পথ চলা শুরু ভারতের স্বাধীনতারও বেশ কিছু বছর আগে ৷ শালিমার কেমিক্যাল ওয়ার্কসের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপিত হয় ১৯৪১ সালে ৷ প্রকৃতিনাথ ভট্টাচার্যের হাত দিয়ে এত বড় প্রতিষ্ঠানের জন্ম | ১৯৪৫সালে সংস্থার সঙ্গে যোগ দিলেন পঞ্চানন মন্ডল ৷ দুজনে মিলে একসাথে বড় করে তোলেন শালিমারকে । উত্তর কলকাতার নারকেলডাঙা মেন রোডের কাছে গড়ে ওঠে সংস্থার প্রথম কারখানা ৷ তারপর থেকে কেবলই এক বাঙালি প্রতিষ্ঠান শালিমারের এগিয়ে চলার মন ভাল করা গল্প ৷ তারপর দীর্ঘ সত্তর বছরের বেশী পথচলা । কোম্পানীর কথায় বলতে গেলে ‘In these extensive seven decades of experience, the company has risen to a recognizable position in the industry only due to its compelling workforce that remain active, diligent and dedicated throughout to maintain our commitment, integrity and credibility in the market place,’

আরো পড়ুন:  তার লিখিত বই "ফার্স্ট বুক" বাঙালিকে ইংরেজি ভাষার সঙ্গে পরিচিত করিয়েছিল

বাংলা,ভারতের সীমানা ছাড়িয়ে শালিমার আজ এক বিশ্ব ব্র্যান্ড যার বিস্তীর্ণ সাম্রাজ্যের বোধহয় কোন ভৌগোলিক পরিধি নেই ৷ পন্য তালিকায় বৈচিত্রের সম্ভার আর তার সঙ্গে মানুষের অগাধ বিশ্বাস যোগ হয়েছে বলেই নানা ব্র্যান্ডের সঙ্গে পাল্লা দিয়েও স্বমহিমায় মাথা উঁচু করে ব্যবসায়িক সাম্রাজ্যের পরিধি বৃদ্ধি করতে পেরেছে শালিমার ৷ কি পন্য নেই তাদের সম্ভারে? গৃহস্থলীর ব্যবহারের জন্য যা,যা,প্রয়োজন সবই আছে তাদের সম্ভারে ৷ কেশ পরিচর্যার নানা ধরনের নারকেল তেল ছাড়াও শালিমারের পন্য সম্ভারে আছে মেডিকেটেড নারকেল তেল, নন স্টিক অয়েল, সরিষার তেল, উদ্ভিজ্জ তেল, রান্নার তেল, আয়ুর্বেদিক জেসমিন তেল,ভোজ্য নারকেল তেল ৷ বাড়ির গৃহিণী থেকে শেফ,বাবুর্চিদের সেরা রান্নার জন্য পছন্দের শীর্ষে আছে শালিমারেরই মাংস রান্নার মশলা, মরিচের গুঁড়ো, হলুদ গুঁড়ো এবং জিরা গুঁড়োর মতো মশলা ৷ অতীতেও শালিমার ব্র্যান্ডে আম-জনতার বিশ্বাস ছিল অটুট,আজও আছে সেই আস্থা,ভবিষ্যতেও নিশ্চিতভাবে থাকবে৷তাই বোধহয় আজও আবালবৃদ্ধ বনিতা গুনগুনিয়ে সুর ভাজে ” মেরা পেয়ার শালিমার ৷ “

আরো পড়ুন:  তিন লক্ষেরও বেশি দেশলাই কাঠি ব্যবহার করে তাজমহল,গিনেস রেকর্ডের দাবিদার কৃষ্ণনগরের সহেলি পাল

-অরুনাভ সেন

বাংলা আমার প্রাণ

বাংলা আমার প্রাণ

"বাংলা আমার প্রাণ" বাংলা ও বাঙালির রীতিনীতি,বিপ্লবকথা,লোকাচার,শিল্প ও যাবতীয় সব কিছুর তথ্য প্রকাশ করে।বাংলা ভাষায় বাংলার কথা বলে "বাংলা আমার প্রাণ"। সকল খবর ও তথ্য আপনাদের কেমন লাগছে,তা আপনাদের কতোটা মন ছুঁতে পারছে তা জানতে আমরা আগ্রহী।যাতে আগামী দিনে আপনাদের আরো তথ্য উপহার দিতে পারি। আপনাদের মতামত ওয়েবসাইটে প্রকাশ করুন,আরো এগিয়ে যাওয়ার পথে এটিই আমাদের পাথেয়। বিন্দু বিন্দুতে সিন্ধু গড়ে ওঠে।আর তাই আজ আপনাদের ভালোবাসা সহযোগিতা ও অনুপ্রেরণায় আমরা এক বৃহৎ পরিবার।এখনো বহু পথ চলা বাকি তাই আপনাদের সাধ্য ও বিবেচনা অনুযায়ী অনুদান দিয়ে এই পেজের পাশে থাকুন। আমাদের পেজে প্রকাশিত সকল তথ্য আমরা একে একে নিয়ে আসছি আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে ভিডিও আকারে।দয়া করে আমাদের পেজ ও ওয়েবসাইট থেকে প্রকাশিত কোনো তথ্য বা লেখা নিয়ে কোনো ভিডিও বানাবেন না।যদি ইতিমধ্যে তা করে থাকেন তবে তা অবিলম্বে মুছে ফেলুন। আমাদের সকল কাজ DMCA কর্তৃক সংরক্ষিত তাই এ সকল তথ্যাদির পুনর্ব্যবহার বেআইনি ও কঠোর পদক্ষেপ সাপেক্ষ।ধন্যবাদ।

Related post

করোনাকে না করো

ভাইরাসের কবলে আজ সারা বিশ্ব,গৃহবন্দী বিশ্ববাসী।বন্ধ দ্বার খুলতে তাই নিজেদের সুরক্ষিত রাখুন,হাত ধুয়ে নেমে পড়ুন এই ভাইরাস দমনে।