গাড়ির সামনে এসে পড়ল অন্ধ ব্যক্তি,ব্যথিত নেতাজির আদেশে অসীমানন্দ সরস্বতী গড়ে তুললেন “নেতাজি আই হসপিটাল”

গাড়ির সামনে এসে পড়ল অন্ধ ব্যক্তি,ব্যথিত নেতাজির আদেশে অসীমানন্দ সরস্বতী গড়ে তুললেন “নেতাজি আই হসপিটাল”

নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসু | আমরা এখন সেই মহামানবের জন্ম মাসেই রয়েছি। নেতাজিকে নিয়ে ইতিহাসের পাতায় অজস্র কাহিনী, ঘটনা বর্ণিত আছে। সেরকমই এক গল্প যা হয়তো তেমনভাবে সকলের জানা হয়নি। নেতাজির জন্ম মাসে তাই নেতাজির জীবনের এক ছোট্ট ঘটনা।

নেতাজি ছিলেন একজন প্রকৃত নেতা তাই তার সাথী, অনুরাগী ও সহযোগীর অভাব ঘটেনি। তেমনি একজন সহযোগী ছিলেন মানভূম জেলার বিপ্লবী অন্নদা কুমার চক্রবর্তী।

আরো পড়ুন:  দেবেন্দ্রমোহন বসুর দেখানো পথে নোবেল পেলেন ইংরেজ পদার্থবিদ সিসিল পাওয়েল,বঞ্চিত হলেন দেবেন্দ্রমোহন

একদিন নেতাজি রামচন্দ্রপুর থেকে ফিরছিলেন, ফেরার পথে তার গাড়ির সামনে দুর্ঘটনাবশত এক অন্ধ ব্যক্তি এসে পড়ে, দৈবক্রমে সেদিন সেই অন্ধ ব্যক্তি আহত না হলেও নেতাজির মনে বড় আঘাত লেগেছিল। তিনি তার সহযোগী বিপ্লবী অন্নদা কুমার চক্রবর্তীর কাছে প্রকাশ করেন সেই আঘাতের কথা। বলেন, মানভূম এলাকায় দুঃস্থ ও অন্ধদের জন্য কিছু করার কথা।বিপ্লবী অন্নদা কুমার চক্রবর্তী পরবর্তীতে প্রখ্যাত হয়েছিলেন স্বামী অসীমানন্দ সরস্বতী নামে। নিজের পরিচয় পাল্টালেও নেতাজির বলা কথা তার মন থেকে মুছে যায়নি। তাই নেতাজি আদর্শে অনুপ্রাণিত অসীমানন্দ সরস্বতী পুরুলিয়ার সাঁতুড়িতে প্রতিষ্ঠা করেন “নেতাজি আই হসপিটাল”, যে হসপিটাল আজও জ্যোতি ফিরিয়ে চলেছে অনেক জ্যোতিহীনের।

আরো পড়ুন:  প্রথম ভারতীয় নারী হিসাবে কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক হন বঙ্গতনয়া লতিকা সরকার

১৯৫৭ সালে গড়ে ওঠা এই হসপিটালটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন নেতাজির ভাই শ্রীযুক্ত সুরেশচন্দ্র বসু।

নিজের আদর্শ, কর্ম ও বাণী দ্বারাই নয় নেতাজি আমাদের মাঝে অনুপস্থিত থেকেও আজও আলোকিত করে চলেছেন বহু ভারতবাসীর জীবন।

আরো পড়ুন:  ফিঙ্গার প্রিন্ট সরলীকরণ পদ্ধতির আবিষ্কারক ছিলেন এই বঙ্গসন্তান,কিন্তু কৃতিত্ব নিয়েছিল ব্রিটিশরা

-লিলি চক্রবর্তী

Tripti Das Roy

Tripti Das Roy

করোনাকে না করো

ভাইরাসের কবলে আজ সারা বিশ্ব,গৃহবন্দী বিশ্ববাসী।বন্ধ দ্বার খুলতে তাই নিজেদের সুরক্ষিত রাখুন,হাত ধুয়ে নেমে পড়ুন এই ভাইরাস দমনে।