আমেরিকায় লোভনীয় চাকরি ছেড়ে ব্রিটিশদের চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুরেন্দ্রমোহন বসু প্রতিষ্ঠা করেছিলেন ডাকব্যাক

আমেরিকায় লোভনীয় চাকরি ছেড়ে ব্রিটিশদের চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুরেন্দ্রমোহন বসু প্রতিষ্ঠা করেছিলেন ডাকব্যাক

বিজ্ঞান, সাহিত্য, সংস্কৃতি সহ অনেক বিষয়েই বাঙালির জয়যাত্রা নিয়ে কথা বলুন, বাঙালিকে গৌরবান্বিত করুন, কোন প্রশ্ন বা প্রতিবাদ আসবে না কোন মহল থেকেই। কিন্তু ব্যবসা নিয়ে কথা বললেই সর্বনাশ, প্রথম প্রতিবাদ অবশ্যই কোন বাঙালির কাছ থেকে, ওই ধরনের মন্তব্য সমেত। একটাই কথা “বাঙালির দ্বারা আর যাই হোক না কেন ব্যবসা হওয়ার নয়, ও জিনিষ বাঙালির রক্তেই নেই, কোনদিনই ছিল না”।

কিন্তু একটা সময় ছিল যখন রেইনকোট বা বর্ষাতি মানেই ছিল ডাকব্যাগের তৈরী কোট। ট্রেনে করে কোথাও বেড়াতে গেলে বিছানা বালিশ যে হোল্ডলে বেঁধে নিয়ে যেতে হত সেটিও সাধারণত তৈরি করতো ডাকব্যাক। রেনকোটের ভেতরে থাকত একটা রবারের লাইনিং। যদ্দুর মনে পড়ে, ডাকব্যাকের নির্দেশিকায় বলা ছিল – বর্ষার মাসগুলো শেষ হলে সেই রবার লাইনিং-এ ফ্রেঞ্চ চকের গুঁড়ো মাখিয়ে কোটটাকে টাঙিয়ে রাখতে হবে। না করলে কি সমস্যা হবে – সেটা অবশ্য বলা থাকতো না। তবে ছেলেবেলায় অনেক বাড়িতে সারা বছর ডাকব্যাকের বর্ষাতি টাঙানো থাকতে দেখেছি।

আরো পড়ুন:  ইংরেজদের চোখরাঙানি উপেক্ষা করে গৌরমোহন দত্ত তৈরি করেছিলেন "বঙ্গজীবনের অঙ্গ" বোরোলিন

ডাকব্যাক প্রতিষ্ঠা করেছিলেন সুরেন্দ্র মোহন বসু। সেই আমলে তিনি পড়াশুনো করতে গিয়েছিলেন ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়ার বার্কলে এবং স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে! তীব্র জাতীয়তাবোধ তাঁর মধ্যে ছিল। সেইজন্যেই পড়াশনোর জন্যে ইংল্যাণ্ড না গিয়ে আমেরিকায় গিয়েছিলেন। ফিরে আসার পর রাষ্টদ্রোহিতার অভিযোগে কিছুদিন উত্তর প্রদেশের জেলে বন্দি ছিলেন। জেল থেকে মুক্তি পেয়ে দুই ভাইকে নিয়ে তিনি এক বিশেষ নির্মান-কৌশল ব্যবহার করে (পরে যেটি ডাকব্যাক পদ্ধতি বলে খ্যাত হয়) ওয়াটার-প্রুফ সামগ্রী তৈরী করা শুরু করেন।

আরো পড়ুন:  সাইকেল ভ্যানে ডেয়ারির দুধ পৌঁছে দিতেন বাড়ি বাড়ি,তিনিই পরবর্তীতে তৈরী করলেন "বিস্কফার্ম"

রবারের বদলে পিভিসি ব্যবহার করে অপেক্ষাকৃত কম দামে ওয়াটার প্রুফ জিনিসপত্র তৈরী সুরু হওয়ার পর থেকে ডাকব্যাক তার একাধিপত্য হারাতে শুরু করে। ‘মূল্য কমানো হইল’-র পেছনে কি সেটাই কাজ করছে?

আরো পড়ুন:  বই বাঁধানোর জাদুকর তিনি,নীরবেই বিশ্বমানের কাজ করে চলেছেন শিল্পী নারায়ণচন্দ্র চক্রবর্তী

লেখক – স্বপন সেন

বাংলা আমার প্রাণ

বাংলা আমার প্রাণ

"বাংলা আমার প্রাণ" বাংলা ও বাঙালির রীতিনীতি,বিপ্লবকথা,লোকাচার,শিল্প ও যাবতীয় সব কিছুর তথ্য প্রকাশ করে।বাংলা ভাষায় বাংলার কথা বলে "বাংলা আমার প্রাণ"। সকল খবর ও তথ্য আপনাদের কেমন লাগছে,তা আপনাদের কতোটা মন ছুঁতে পারছে তা জানতে আমরা আগ্রহী।যাতে আগামী দিনে আপনাদের আরো তথ্য উপহার দিতে পারি। আপনাদের মতামত ওয়েবসাইটে প্রকাশ করুন,আরো এগিয়ে যাওয়ার পথে এটিই আমাদের পাথেয়। বিন্দু বিন্দুতে সিন্ধু গড়ে ওঠে।আর তাই আজ আপনাদের ভালোবাসা সহযোগিতা ও অনুপ্রেরণায় আমরা এক বৃহৎ পরিবার।এখনো বহু পথ চলা বাকি তাই আপনাদের সাধ্য ও বিবেচনা অনুযায়ী অনুদান দিয়ে এই পেজের পাশে থাকুন। আমাদের পেজে প্রকাশিত সকল তথ্য আমরা একে একে নিয়ে আসছি আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে ভিডিও আকারে।দয়া করে আমাদের পেজ ও ওয়েবসাইট থেকে প্রকাশিত কোনো তথ্য বা লেখা নিয়ে কোনো ভিডিও বানাবেন না।যদি ইতিমধ্যে তা করে থাকেন তবে তা অবিলম্বে মুছে ফেলুন। আমাদের সকল কাজ DMCA কর্তৃক সংরক্ষিত তাই এ সকল তথ্যাদির পুনর্ব্যবহার বেআইনি ও কঠোর পদক্ষেপ সাপেক্ষ।ধন্যবাদ।

Related post

করোনাকে না করো

ভাইরাসের কবলে আজ সারা বিশ্ব,গৃহবন্দী বিশ্ববাসী।বন্ধ দ্বার খুলতে তাই নিজেদের সুরক্ষিত রাখুন,হাত ধুয়ে নেমে পড়ুন এই ভাইরাস দমনে।