ব্রিটিশ আমলে কুকুরকে ধমকানোর জন্যে মামলা হয়েছিল কলকাতায়,কারাদণ্ড ভোগ করতে হয়েছিল আসামিকে

ব্রিটিশ আমলে কুকুরকে ধমকানোর জন্যে মামলা হয়েছিল কলকাতায়,কারাদণ্ড ভোগ করতে হয়েছিল আসামিকে

কুকুরকে ধমকানো | আর এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে মামলা হয়েছিল পুরোনো কলকাতায় | সেই সময়ের খবরের কাগজে ফলাও করে ছাপাও হত এই মামলার গতিপ্রকৃতি | এমনকি কুকুরকে ধমকানোর জন্যে তিন মাস সশ্রম কারাদণ্ড ভোগ করতে হয়েছিল রাজচন্দ্র দাসকে |

অনেক পুরোনো দিনের কথা | সল্ ১৮২৩ | কলকাতা তখন ছিল কলিকাতা | ব্রিটিশ শাসন তখন মধ্যগগনে | একবার রাজচন্দ্র দাস কলকাতার এক রাস্তা দিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন | হঠাৎ তিনি দেখলেন রাস্তার একটি কুকুর একটি ছাগলকে কামড়ে অর্ধমৃত করে দিয়েছে | রাজচন্দ্র দাস এই দেখে কুকুরটিকে হেই হেই বলে তাড়া দিলেন | এই দেখে আশেপাশের কিছু লোক ‘কুকুর মারছে কুকুর মারছে’ বলে চিৎকার শুরু করে দিলেন | পাশেই ছিল ম্যাজিস্ট্রেট ডইলি’র বাংলো | ওই চিৎকার শুনে সেই বাংলো থেকে ছুটে এল বেশ কয়েকজন লোক | তারা রাজচন্দ্র দাসকে ধরে নিয়ে গেল বাংলোর ভিতর | ম্যাজিস্ট্রেট ডইলি তখন ক্রিকেট খেলছিলেন | চিৎকারে তার খেলায় ব্যাঘাত হল | ভৃত্যদের কথা শুনে ক্ষিপ্ত হয়ে ডইলি ব্যাট দিয়ে রাজচন্দ্র দেশের মাথায় আঘাত করে | মাথা দিয়ে ফিনকি দিয়ে রক্ত বেরিয়ে আসে | সেই অবস্থাতেই রাজচন্দ্র দাসকে কয়েকজন থানায় নিয়ে যায় | তখনই জেলে বন্দি করা হয় রাজচন্দ্র দাসকে | রাতে ম্যাজিস্ট্রেট ডইলি থানায় চিঠি লিখে রাজচন্দ্র দাসকে ছেড়ে দিতে বলেন | সেই চিঠি পেয়ে জেলের দারোগা ছেড়ে দেন রাজচন্দ্র দাসকে | রাতে বাড়ি ফেরেন রাজচন্দ্র দাস |

আরো পড়ুন:  ফেভারিট কেবিনে বসত বিপ্লবীদের গোপন বৈঠক,পালানোর জন্যে ছিল রান্নাঘরের পাশের সুড়ঙ্গ

কিন্তু কাহিনী এখানেই শেষ নয় | পরের দিন ভোরবেলায় রাজচন্দ্র দাসের বাড়িতে আবার পুলিশ গেল | তাকে গ্রেফতার করে আবার থানায় নিয়ে আসা হল | জানা গেল ওই কুকুরটি ছিল ম্যাজিস্ট্রেট ডইলি’র স্ত্রীর | ম্যাজিস্ট্রেট ডইলি ওই ঘটনায় তাকে ক্ষমা করলেও তার স্ত্রী রাজচন্দ্র দাসকে ক্ষমা করেননি | তিনি রাজচন্দ্র দাসের নামে মামলা করেছেন | এই ঘটনায় আলোড়ন পড়ে গিয়েছিল বাংলায় | ইংরেজি বাংলা সংবাদপত্রে এই মামলার কথা গুরুত্ব সহকারে লেখা হত |

আরো পড়ুন:  প্রিন্সেপ ঘাটের প্রিন্সেপের গল্প

মামলার বিচার হয়েছিল জয়েন্ট ম্যাজিস্ট্রেট ক্লে’র আদালতে | মিথ্যা মামলা সাজানো হল রাজচন্দ্র দাসের নামে | রাজচন্দ্র দাস কুকুরটিকে শুধু ধমক দিয়েছিলেন | কিন্তু মামলা সাজানো হল এই বলে যে রাজচন্দ্র দাস কুকুরটিকে হত্যা করেছেন | এই মামলায় ব্রিটিশরা রাজচন্দ্র দাসের তিন মাসের সশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দিল | রাজচন্দ্র দাসের কাকা ঠিক করলেন ম্যাজিস্ট্রেট ডইলি’র নামেও নালিশ জানানো হবে | সেইমত রাজচন্দ্র দাসকে ব্যাট দিয়ে আঘাত করার জন্যে ম্যাজিস্ট্রেট ডইলি’র নামে নালিশ জানানো হল থানায় | মৌচাকে ঢিল পড়ল | জেলে রাজচন্দ্র দাসের উপর অত্যাচার বেড়ে গেল | চাপ পড়ল মামলা উঠিয়ে নেওয়ার | এমনকি ম্যাজিস্ট্রেট ডইলি’র মামলার তারিখ প্রতিবার পিছিয়ে দেওয়া হতে লাগল | শেষমেশ রাজচন্দ্র দাস ম্যাজিস্ট্রেট ডইলি’র উপর করা মামলা তুলে নেন | রাজচন্দ্র দাসকেও জেল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয় |

আরো পড়ুন:  বরিশালের মুকুটহীন সম্রাট ছিলেন তিনি,বাঙালি মনে রাখেনি অশ্বিনীকুমার দত্তকে

এমনই ছিল সেই আমলের বিচার ব্যবস্থা | বিচার নয় শুধুই বিচারের নামে প্রহসন !

তথ্য : কলির শহর কলকাতা (হরিপদ ভৌমিক)

Avik mondal

Avik mondal

করোনাকে না করো

ভাইরাসের কবলে আজ সারা বিশ্ব,গৃহবন্দী বিশ্ববাসী।বন্ধ দ্বার খুলতে তাই নিজেদের সুরক্ষিত রাখুন,হাত ধুয়ে নেমে পড়ুন এই ভাইরাস দমনে।