সংগ্রহে ৫২ টি দেশের নোট,ফারাক্কায় রিজুর পানের দোকান যেন মুদ্রা মিউজিয়াম

সংগ্রহে ৫২ টি দেশের নোট,ফারাক্কায় রিজুর পানের দোকান যেন মুদ্রা মিউজিয়াম

মানুষ হল সৌখিন। সত্যিই তার শখের অন্ত নেই। এই শখেই কেউ টিকিট জমাচ্ছে,কেউ বা টিকিট কেটে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এই সব কারণে কেউ বা মুঠো মুঠো টাকাও ওড়াচ্ছে।

রিজু কিন্তু টাকা ওড়ায় না বরং টাকা সংগ্রহ করে।যেখানে মানুষ শখে টাকা খরচা করছে সেখানে এই শখের কারণেই ফারাক্কা ব্যারেজ কলোনির রিজু টাকা জমাচ্ছে। পুরো নাম রিজু ইসলাম। ফারাক্কা ব্যারেজ বাজারে একটি পানের দোকান চালায় সে। রিজুর বাবারও এই একই শখ ছিল, আর সেখান থেকেই তার মধ্যে ইচ্ছা জাগে এই সংগ্রহে আরও কিছু সংযোজন করার। নানান সময়ের ও নানান দেশের মুদ্রা রয়েছে তার ঝুলিতে।

আরো পড়ুন:  মৃত্যুর পর যেন দেহ মেদিনীপুরেরই সমাধিস্থ করা হয়,আত্মচরিতে লিখেছিলেন মেদিনীপুরের আধুনিকতার কাণ্ডারী রাজনারায়ণ বসু

কিছু মানুষ জমান নোট কেউ বা কয়েন। নোট সংগ্রহকারীদের বলা হয় নোটাফিলিস্ট আর যারা কয়েন সংগ্রহ করে তারা হল নিউমিস্টম্যাটিস্ট। রিজু উভয়ই জমান তাই তাকে উভয় নামেই ভূষিত করা যায় | মুর্শিদাবাদের ফারাক্কা ব্যারেজ কলোনির বাসিন্দা রিজুর সংগ্রহে রয়েছে ভারত সহ মোট ৫২টি দেশের নোট।যা তিনি নিজের দোকানে সাজিয়ে রাখেন।যাতে মানুষ এগুলি দেখার সুযোগ পায়।অনেকে এগুলি দেখতে ভিড়ও জমান তার দোকানে।

আরো পড়ুন:  স্বাধীন ভারতের প্রথম বায়ুসেনা প্রধান ছিলেন এই বঙ্গসন্তান,তাঁরই সম্মানে চালু হয় সুব্রত কাপ

এগুলি সংগ্রহ করতে বেশ কাঠখড় পোড়াতে হয় তাকে। যখন যেখানে খোঁজ পান পৌঁছে যান সেখানে নেশার টানে। অনেক মানুষের থেকেও এই মুদ্রা সংগ্রহ করেন তিনি।

পান বিক্রেতা রিজু শখের কারণে নিজের ব্যবসাকে অবহেলা করেন না কখনো। ৫২টি দেশের মুদ্রা সংগ্রহের সঙ্গে সঙ্গে ১৮২ রকমের পানও বানিয়ে তাক লাগিয়ে দিতে পারে রিজু সকলকে।

আরো পড়ুন:  মহিষাসুর তাদের পূর্বপুরুষ,তাই দুর্গাপুজোয় অংশ নেয় না অসুর সম্প্রদায়

-লিলি চক্রবর্তী

Avik mondal

Avik mondal

Related post

Leave a Reply

করোনাকে না করো

ভাইরাসের কবলে আজ সারা বিশ্ব,গৃহবন্দী বিশ্ববাসী।বন্ধ দ্বার খুলতে তাই নিজেদের সুরক্ষিত রাখুন,হাত ধুয়ে নেমে পড়ুন এই ভাইরাস দমনে।