তিনিই প্রথম বাঙালি যিনি ইউরোপ পাড়ি দিয়েছিলেন

তিনিই প্রথম বাঙালি যিনি ইউরোপ পাড়ি দিয়েছিলেন

ইতিহাসের পাতা ঘাঁটলেই দেখা যায়, মুনশিদের কৃতিত্বের দাবিদার অনেকেই বিভিন্ন দিক থেকে স্থান দখল করে আছেন। অষ্টাদশ শতকে বাঙালির চোখ দিয়ে ইউরোপকে দেখা সত্যিই খুব রোমাঞ্চকর।কেউ কেউ মনে করেন উপমহাদেশের প্রথম ইউরোপ ভ্রমণ কারী ব্যক্তি ছিলেন রাজা রামমোহন রায়। কিন্তু এই ধারণা একেবারেই ঠিক না। উপমহাদেশের প্রথম ইউরোপ ভ্রমণ কারী ব্যক্তি ছিলেন মির্জা শেখ ইতেসামউদ্দিন।ইতেসামউদ্দিন ১৭৬৫ সালে ইউরোপ ভ্রমণে যান | জানা যায় তিনি ছাড়াও ১৭৮৪ সালে মীর মোহাম্মদ হোসেন, ১৭৯০ সালে মুন্সী মোহাম্মদ শাফি এবং ১৭৯৯ সালে মির্জা আবু তালিব ইউরোপ ভ্রমণে যান। ইতেসামউদ্দিন যখন ইউরোপ গিয়েছিলেন তখন রাজা রামমোহনের জন্ম হয়নি।

মির্জা শেখ ইতেসামউদ্দিন জন্মেছিলেন নদীয়া জেলার চাকদহে আনুমানিক ১৭৩০ সালে।তাঁর পিতার নাম ছিল শেখ তাজউদ্দিন। তিনি উচ্চবংশীয় সম্ভ্রান্ত ব্যক্তি ছিলেন। ইতেসামউদ্দিন মীরজাফর আলী খানের অধীনে সেরেস্তায় ছিলেন।ইতেসামউদ্দিন ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানিতে ১৭৬২ সালে যোগদান করেন। তিনি আরবি ,বাংলা, পাকিস্তানি এবং পার্শিয়ান ভাষায় ভালো শিক্ষিত এবং বেশ সাবলীল ছিলেন। মূলত ফারসি ভাষায় চিঠিপত্র লেখার ছিল কাজ করতেন তিনি ।তারপর ১৭৬৫ সালে তিনি নিযুক্ত হন মুঘল বাদশা দ্বিতীয় শাহ আলমের দরবারে । এলাহাবাদবাসী মুঘল সম্রাট তখন দিল্লিতে ফিরতে আকুল। ক্লাইভকে পত্র লেখেন, দিল্লিতে ফেরার ব্যবস্থা করতে বলেন। ক্লাইভ বলেন, একাজ করতে পারেন একমাত্র ইংল্যান্ডের মহারাজা। শাহ আলম তাতেও রাজি। যেভাবেই হোক তিনি ইংল্যান্ডের মহারাজার সঙ্গে দেখা করবেন। ক্লাইভ জানালেন, তিনি আপাতত দেশে ফিরছেন না। ফিরছেন কোম্পানির ক্যাপ্টেন আর্চিবাল্ড সুইন্টন। মুঘল সম্রাট তাঁর হাত দিয়েই আবেদনপত্র পাঠাতে চাইলেন। চিঠির সঙ্গে দিলেন অমূল্য সব নজরানা। সঙ্গে এক লক্ষ টাকা।

আরো পড়ুন:  কলকাতার কাছে ব্যারাকপুরে গড়ে উঠেছিল এশিয়ার প্রথম চিড়িয়াখানা

কোম্পানির ক্যাপ্টেন আর্চিবাল্ড এর সঙ্গে ইতেসামউদ্দিনের যাওয়ার প্রস্তাব স্থির হল।১৭৬৬ সালের জানুয়ারি মাসে পূর্ব মেদিনীপুরের হিজলি বন্দর থেকে যাত্রা শুরু হয়। সেই সময় শীতকাল ছিল।তাই প্রচণ্ড কুয়াশা তে কিছু দেখতে পাওয়া যায় না। জাহাজ ছাড়ার পর শোনা যায়,ক্লাইভ আর্চিবাল্ড কে না দিয়েছেন চিঠি না কোনো উপঢৌকন। কিন্তু কি করবেন ইতেসামউদ্দিন ? মাঝ দরিয়ায় তোয়ার ঝাঁপ দিয়ে পড়া যায় না। স্টিমার দিয়েছে দিগন্তে পাড়ি। পাড়ের ভাবনা পাড়েই রেখে ইতেসামউদ্দিন পাড়ি দিলেন। এই ভাবেই ঘটেছিল বাঙালির প্রথম ইউরোপ যাত্রা।

আরো পড়ুন:  শিবদাস ভাদুড়ী,গোষ্ঠ পাল সকলেই তাঁর ছাত্র,বাঙালি মনে রাখেনি বাংলার ফুটবলের প্রথম কোচ দুখীরাম মজুমদারকে

ইতেসামউদ্দিন লক্ষ্য করেছিলেন জাহাজ চলা সময় ইংরেজদের ব্যবহার করা যন্ত্রপাতি,দিক নির্ণয়ের কম্পাস, হাওয়া বুঝে পাল খাটানোর নানা বন্দোবস্ত | বোঝার চেষ্টা করেছিলেন এই বিশ্বজয়ী জাতিটির গোপন অস্ত্র গুলি কি কি। বুঝেছিলেন প্রযুক্তিকে তারা ভালোভাবেই রপ্ত করেছে। ইতেসামউদ্দিন ইউরোপ পৌঁছানোর আগে নেমেছিলেন কেপটাউনে। তিনি ইংল্যান্ড গিয়ে বুঝেছিলেন, বন্দর থেকে কিভাবে গোপনে বিদেশি পণ্য পাচার হয়ে চলে যায় দেশের অভ্যন্তরে।

ইতেসামউদ্দিন ভারতীয় হওয়ার জন্য ব্রিটিশরা তাকে প্রথমে দূরে সরিয়ে রেখেছিলেন বটে কিন্তু সেই দূরত্ব কেটে যায় কিছুদিনেই। তিনি লিখে গেছেন যে, অনেক বিদেশিনী নাকি তার প্রতি আকৃষ্ট ছিল। অক্সফোর্ডে গিয়েছিলেন ইতেসামউদ্দিন। হাজার বছরের পুরনো মাদ্রাসা দেখে চোখ জুড়িয়ে গিয়েছিল তাঁর।দক্ষিণ এশিয়ার পাণ্ডুলিপিতে সাহায্য করতে গিয়ে স্যার উইলিয়াম জোন্স এর সঙ্গে পরিচয় হয়। ফরহাদ জাহাঙ্গীর নামে ফার্সি ব্যাকরণের নিয়ম নাকি ভালো করে বুঝিয়ে দিয়ে এসেছিলেন তিনি।

আরো পড়ুন:  ভারতবর্ষের প্রথম মহিলা মেরিন ইঞ্জিনিয়ার ছিলেন এই বঙ্গকন্যা

তিন বছরের পরে ইতেসামউদ্দিন বাংলায় ফিরে আসেন।পরে আবার তিনি ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির দ্বারা নিযুক্ত হন। তাঁকে অনেকে বিলিয়ত মুন্সী নামে ডাকতেন। কারণ তিনিই যে প্রথম বিলেত ভ্রমণ করেছিলেন। ১৭৮৫ সালে তিনি শিগুর-নামা-ই-উইলিয়াত (বা ইংল্যান্ডের ওয়ান্ডার বুক) পার্সিয়ান ভাষায় তাঁর ভ্রমণের বিবরণ দিয়ে প্রকাশ করেছিলেন। এই বই থেকে জানা যায় তিনি খুঁটিয়ে দেখেছিলেন ইংল্যান্ডের সমাজ ব্যবস্থাকে। লক্ষ্য করেছেন যে ,সেখানে নারীরা অনেক স্বাধীন। আড়াইশো বছর আগে ইংল্যান্ডের হাল হকিকতের নিরপেক্ষ বিচার করেছেন ইতেসামউদ্দিন। ইউরোপকে নিয়ে বাঙালির কৌতুহল,আকর্ষণ নেহাত কম না। তবে সেই দিক থেকে বিচার করে বলা যায়, সেই সময়ে দাড়িয়ে ইতেসামউদ্দিন তাঁর ভ্রমণ বৃত্তান্ত যেভাবে মানুষের কাছে তুলে ধরেছেন তা এক কথায় অসাধারণ।

তথ্য : বঙ্গদর্শন (সুরমিতা কাঞ্জিলাল)

Tripti Das Roy

Tripti Das Roy

করোনাকে না করো

ভাইরাসের কবলে আজ সারা বিশ্ব,গৃহবন্দী বিশ্ববাসী।বন্ধ দ্বার খুলতে তাই নিজেদের সুরক্ষিত রাখুন,হাত ধুয়ে নেমে পড়ুন এই ভাইরাস দমনে।