সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কার পেলেন বিশিষ্ট সাহিত্যিক শংকর

সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কার পেলেন বিশিষ্ট সাহিত্যিক শংকর

২০২০-র সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কার পেলেন শংকর। তাঁর আত্মজীবনী ‘একা একা একাশি’-র জন্য ওই পুরস্কার দেওয়া হচ্ছে। তাঁর লেখার স্বাদ সীমাবদ্ধ থাকেনি শুধুমাত্র এপার বাংলা ওপার বাংলায়,মানে রসবতী বঙ্গ বসুন্ধরার মাঝে ! অনেক আগেই মানবসাগর তীরে ধরে মানচিত্র ছাড়িয়ে,ছড়িয়ে পড়েছিল অনেক দূর,এমনকি সপ্তসাগর পারেও !

শংকর ১৯৩৩ সালের ৭ ডিসেম্বর যশোরের বনগ্রামে জন্মগ্রহণ করেন । তাঁর আসল নাম মণিশংকর মুখোপাধ্যায়। আইনজীবী বাবা হরিপদ মুখোপাধ্যায় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরুর আগেই চলে যান কলকাতার ওপারে হাওড়ায়। সেখানেই শংকরের বেড়ে ওঠা, পড়াশোনা ও সাহিত্য সাধনার শুরু। জীবনের শুরুতে কখনো ফেরিওয়ালা, টাইপরাইটার ক্লিনার, কখনো প্রাইভেট টিউশনি, কখনো শিক্ষকতা কখনও কেরানিগিরি করেছেন। এক ইংরেজের অনুপ্রেরণায় তিনি শুরু করেন লেখালেখি।

আরো পড়ুন:  যতীন দাসের মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ কবিগুরু লিখলেন "সর্ব খর্বতারে দহে তব ক্রোধদাহ । হে ভৈরব ! শক্তি দাও..... ভক্তপানে চাহো..."

শংকরের প্রথম বই প্রকাশিত হয় ১৯৫৫ সালে।অল্প বয়সে কত অজানারে বইটি লিখে জনপ্রিয়তা লাভ করেন | বিখ্যাত পরিচালক সত্যজিৎ রায় তার সীমাবদ্ধ এবং জন অরণ্য উপন্যাসের কাহিনী অবলম্বনে চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন। তার চৌরঙ্গী উপন্যাস অবলম্বনেও চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছে। এতে মুখ্য চরিত্র স্যাটা বোসের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন উত্তম কুমার। সেই প্রসঙ্গে শংকর বললেন, “সত্যজিৎই আমাকে সকলের কাছে পৌঁছে দিয়েছে, ছড়িয়ে দিয়েছে।”

আরো পড়ুন:  বাঙালিকে ম্যাজিক রিয়েলিজিমের সঙ্গে পরিচয় করিয়েছিলেন,করোনা সংক্রমণে প্রয়াত হলেন প্রাবন্ধিক মানবেন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়

বাংলার মেয়েরা মুক্তির স্বাদ পেয়েছেন শংকরের লেখার মাঝেই। তনয়াদের চিরকালের উপকথা তাঁর লেখা। এই জীবনের সুখ আর দুঃখের কথা পদ্মপাতায় জল হয়ে তাঁর লেখার পটভূমি রচনা করেছে।তিনি আমাদের জানিয়েছেন কত অজানারে। শ্রী শ্রী রামকৃষ্ণ রহস্যামৃত,অচেনা অজানা বিবেকানন্দ, আশ্চর্য বিবেকানন্দ,অবিশ্বাস্য বিবেকানন্দ যেখানে যেমন অনুভবে চরণ ছুঁয়ে গিয়েছেন। তাঁদের সাথে পরিচিত করিয়ে সুখ সাগরে ভাসিয়ে দিয়েছেন পাঠকদের ।

আরো পড়ুন:  স্বাধীন ভারতের প্রথম মহিলা অলিম্পিয়ান তিনি,আমরা কি মনে রেখেছি নীলিমা ঘোষকে?

শংকরের উপন্যাসে মুগ্ধ ছিলেন স্বয়ং শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি একটি চিঠিতে শংকরকে উৎসাহ দিতে লিখে পাঠান ‘ব্রাইট বোল্ড বেপরোয়া।’ বিবেকানন্দ গবেষক হিসেবেও খ্যাতির তুঙ্গ স্পর্শ করেছেন শংকর।তাঁর এই সাফল্যে খুশির হাওয়া ছড়িয়ে পড়েছে পাঠকমহলে |

Avik mondal

Avik mondal

Related post

করোনাকে না করো

ভাইরাসের কবলে আজ সারা বিশ্ব,গৃহবন্দী বিশ্ববাসী।বন্ধ দ্বার খুলতে তাই নিজেদের সুরক্ষিত রাখুন,হাত ধুয়ে নেমে পড়ুন এই ভাইরাস দমনে।