ইলেকট্রিক বাস পরিষেবায় বিশ্বে তৃতীয় স্থানে কলকাতা,টেক্কা লন্ডনকেও

ইলেকট্রিক বাস পরিষেবায় বিশ্বে তৃতীয় স্থানে কলকাতা,টেক্কা লন্ডনকেও

ইলেকট্রিক বাস পরিষেবায় বিশ্বে তৃতীয় কলকাতা | ইভি সিটি কেসবুক (EV City Casebook)-এর মাধ্যমে বিশ্বের উল্লেখযোগ্য শহরগুলিতে কীভাবে ইলেকট্রিক যানের পরিবহণ বৃদ্ধি পাচ্ছে তার একটি সমীক্ষা করা হয়। আগের মতো চলতি বছরেও সমীক্ষায় উঠে আসে কলকাতার নাম। সমীক্ষায় কলকাতার পাশাপাশি ছিল ব্রিটেনের লন্ডন, চিনের শেনজেন, চিলির স্যান্টিয়াগো, কানাডার ভ্যানকুভার।এই সমীক্ষা অনুযায়ী ইলেকট্রিক বাস পরিষেবায় লন্ডনকেও পিছনে ফেলে দিয়েছে কলকাতা |

আরো পড়ুন:  একশো বছরে পা রাখল কলকাতার ঐতিহ্যবাহী বইয়ের দোকান "অক্সফোর্ড"

সমীক্ষা অনুযায়ী ইলেকট্রিক বাসের ক্ষেত্রে বিশ্বে এক নম্বর স্থানে চিনের শেনজেন শহর। প্রসঙ্গত, বিশ্বের মোট ইলেকট্রিক বাসের ৯৯% চিনে | দেশের বৃহত্তম ইলেকট্রিক বাসের সম্ভার নিয়ে এই তালিকায় বিশ্বে তৃতীয় স্থান লাভ করেছে কলকাতা। কলকাতা ছাড়া কেবল মাত্র গুজরাতের আহমেদাবাদের নাম এসেছে এই সমীক্ষায়। যদিও সেটা ইলেকট্রিক বাস নয়, ইলেকট্রিক ট্যাক্সির সেগমেন্টে।

আরো পড়ুন:  সাইকেল চালিয়ে বাংলার গ্রামে গ্রামে ঘুরে অর্থনীতির গবেষণা করতেন নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন

কলকাতায় বৈদ্যুতিক বাস প্রথম চালু হয় ২০১৯ সালে। রাজ্য সরকারের তরফে বেঙ্গল ট্র্যান্সপোর্ট অথরিটি-কে এই বাস চালানোর দায়িত্ব দেওয়া হয়। এখনও পর্যন্ত ১০০টি বাস নামানো হয়েছে | আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে ৫ হাজার বৈদ্যুতিক বাস নামানোর পরিকল্পনা রয়েছে |

আরো পড়ুন:  সিটি কলেজের ছাত্রনেতারা প্রতিশ্রুতি দিতেন, ‘বাংলা ক্লাসে নারায়ণবাবুকে এনে দেব’

তাই এরপর থেকে কলকাতায় ই-বাসে চললে, একটু গর্ব অনুভব করতেই পারেন। হাজার হোক, বিশ্বে তৃতীয় স্থানে কলকাতাকে এনেছে এই ই-বাসই।

Avik mondal

Avik mondal

করোনাকে না করো

ভাইরাসের কবলে আজ সারা বিশ্ব,গৃহবন্দী বিশ্ববাসী।বন্ধ দ্বার খুলতে তাই নিজেদের সুরক্ষিত রাখুন,হাত ধুয়ে নেমে পড়ুন এই ভাইরাস দমনে।