ভারতের প্রথম বায়ুদূষণ বিরোধী আইন চালু হয়েছিল মহানগরী কলকাতাতেই

ভারতের প্রথম বায়ুদূষণ বিরোধী আইন চালু হয়েছিল মহানগরী কলকাতাতেই

বিশ্বব্যাপী জলবায়ুর তারতম্যের একটি প্রধান কারণ হল বায়ুদূষণ। বিভিন্ন কারণে বায়ু দূষণ ঘটে।তবে তার মধ্যে অনেকগুলি আবার মানুষের নিয়ন্ত্রণে নেই। করোনার কারণে লকডাউন এর সময় দূষণের হাত থেকে কিছুটা রক্ষা পাওয়া গেলেও বর্তমানে পরিস্থিতি খুবই খারাপ হয়ে যাচ্ছে |অনেকের হয়তো জানা নেই যে, প্রথম ভারতেই বায়ুদূষণ বিরোধী আইন চালু হয়েছিল এই মহানগরে। যা ছিল পৃথিবীর নিরিখে দ্বিতীয়।

ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির অধীনস্থ থাকাকালীন কলকাতায় শিল্প বিপ্লবের সময় কল কারখানা চালু হয়। ইংরেজরা তখন নিজের মতো করে বানাতে চেয়েছিলেন কলকাতা নগরীকে। বিভিন্ন কলকারখানা গড়ে উঠতে থাকে তাদের হাত ধরেই। কলকাতা থেকে রানীগঞ্জ কয়লা খনি পর্যন্ত রেলপথ চালু হয় প্রথম ১৮৫৫ সালে ইংরেজদের উদ্যোগে। তখন প্রধান শিল্প হিসেবে প্রাধান্য পায় পাট শিল্প। হুগলি নদী কে কেন্দ্র করে এই নদীর তীরে একাধিক পাটকল গড়ে ওঠে। এই সমস্ত শিল্পকে সঠিকভাবে গতিশীল করার জন্য কয়লার ব্যবহারের গুরুত্ব বাড়লো । তাই রাণীগঞ্জ থেকে কলকাতাতে কয়লা আসত রেলপথে। তখন থেকেই বাড়তে থাকে পরিবেশ দূষণ। ধোয়ার দাপটে মানুষের প্রাণ ওষ্ঠাগত। সেই সময় মহানগরের এলিট ইংরেজ এবং ধনী বাঙালিরা মিলে সকলে সরকারের দ্বারস্থ হন। সরকার অনেক ভেবে চিন্তে ১৮৬৩ সালে পাস করেন নতুন আইন -the Calcutta and Howrah smoke Nuisances Act.

আরো পড়ুন:  দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন টালা ট্যাঙ্কের উপর বোমা ফেলল জাপান,তবুও অক্ষত রইল টালা ট্যাঙ্ক

বাতাসকে দূষণের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য নানারকম বিজ্ঞানসম্মত পদক্ষেপ গ্রহণ করেন ইংরেজরা।The Calcutta and Howrah smoke Nuisances Act আইন সঠিকভাবে মেনে চলার জন্য বেশকিছু আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিলেন ইংরেজরা।তখন যদি কোন কারখানার চিমনির অতিরিক্ত ধোঁয়ায় বায়ু দূষিত হতো তখন সেই কারখানার মালিকের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হত।১৮৭৮-৮৯ সাল নাগাদ কলকাতার আকাশ শীতকালে ধোঁয়ায় ঢেকে গিয়েছিল । ব্রিটিশ সরকার সেই সময় এই চরম অবস্থা কে সামাল দেওয়ার জন্য এক ইন্সপেক্টর নিয়োগ করেন।

আরো পড়ুন:  কালীঘাটের মন্দির প্রতিষ্ঠার সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে অলৌকিক ইতিহাস

The Bengel smoke Nuisances Act-আইনটি প্রথম ১৯০৫ সালে চালু করেন ব্রিটিশ সরকার। ১৮৯৯ সালে কলকারখানার পরিমাণ বেশ খানিকটা বেড়ে যাওয়ায় মাত্রাতিরিক্ত দূষণও বেড়ে যায়। তখন সারা কলকাতার আকাশ জুড়ে কালো ধোঁয়ায় ঢেকে যায়। ব্রিটিশদের মধ্যে প্রথম লর্ড কার্জন এই ভয়াবহ পরিস্থিতি নিয়ে বিশেষভাবে চিন্তিত হয়ে পড়েন। আর তাই তাঁর উদ্বিগ্ন তার কারণে ১৯০৩ সালে ১২ ফেব্রুয়ারি বেঙ্গল চেম্বার অফ কমার্সের বক্তৃতায় কলকাতার ও হাওড়ার যে যে জায়গাগুলিতে ধোঁয়ার আধিক্য বেশি সেই সব জায়গা গুলির নাম তার ভাষণের মাধ্যমে তুলে ধরেন । তিনি বলেন ,’মাঝে মাঝে আমরা ভুলে যাই এই শহর সারা এশিয়ায় আমাদের রাজধানী।’সকাল হতে না হতেই সূর্যের আলোকিত অংশকে সারা আকাশ জুড়ে ঢেকে দেয় ধোঁয়া।’ এই চরম সমস্যাকে সমাধান করার জন্য মুশকিল আসান করতে ইংল্যান্ড থেকে একজন বিশেষজ্ঞ আনেন। ঠিক সেই সময় থেকেই চালু হয় ‘The Bengal smoke Nuisance Act.’

আরো পড়ুন:  ম্যাডাম নন, স্যার বললেই বেশি খুশী হন এই মহিলা আইপিএস অফিসার
Tripti Das Roy

Tripti Das Roy

করোনাকে না করো

ভাইরাসের কবলে আজ সারা বিশ্ব,গৃহবন্দী বিশ্ববাসী।বন্ধ দ্বার খুলতে তাই নিজেদের সুরক্ষিত রাখুন,হাত ধুয়ে নেমে পড়ুন এই ভাইরাস দমনে।