ঢাকার সেন্ট্রাল জেলে ব্রিটিশদের অত্যাচারে প্রাণ দিয়েছিলেন বিপ্লবী অনিল দাস, আমরা মনে রাখিনি তাঁর অবদান

ঢাকার সেন্ট্রাল জেলে ব্রিটিশদের অত্যাচারে প্রাণ দিয়েছিলেন বিপ্লবী অনিল দাস, আমরা মনে রাখিনি তাঁর অবদান

জন্ম ১৯০৬-এর ১৮ জুন। ছোট থেকেই মেধাবী | কেমিস্ট্রিতে এমএসসি পাশ | শান্তশিষ্ট স্বভাব । নাম অনিল দাস | এম এস সি করার পর তাঁর আত্মীয় পরিজনদের আব্দার মেনে সিভিল সার্ভিসের পরীক্ষায় না বসে লেগে পড়লেন ‘শ্রীসঙ্ঘের’ সংগঠনের কাজে । তাঁর পরিবারের অনেকেই দেশের কাজে নিজেদের প্রাণ বিসর্জন দিয়েছেন । রক্তের ‘দোষ’ যাবে কোথায় !

১৯৩০ এ মাস্টারদা সূর্য সেনের চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার দখলের পর ব্যাপক ধরপাকড় শুরু হয় । অনিল দাস আত্মগোপন করে পরবর্তী বিপ্লবী পরিকল্পনার জন্য অর্থ সংগ্রহের উদ্দেশ্যে দিনের আলোয় নীলক্ষেত ,রামনা ,ঢাকাতে সদলবলে একটি ট্রেনে রীতিমত ডাকাতি করে প্রচুর অর্থ লুঠ করেন । ব্রিটিশ পুলিশের শ্যেনদৃষ্টি বেশীদিন এড়াতে পারেননি অনিল। বছর দুই লুকিয়ে ছিলেন এখানে ওখানে। কিন্তু ১৯৩২-এর ৬ জুন বরিশাল যাওয়ার পথে ধরা পড়ে যান। ঢাকা সেন্ট্রাল জেল ও কুখ্যাত ‘লালবাগ কিলা’তে একটি সেল এ একা জল ও খাবার ছাড়া রেখে দিয়ে অকথ্য অত্যাচার চালানো হয় । ১৩ জুন মা জেলে গিয়ে দেখলেন ছেলে অনেক শীর্ণ হয়ে গিয়েছে। ১৭ জুন আবার মঞ্জুর হল ছেলেকে দেখতে মায়ের আবেদন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত মা-কে দেখতে দেওয়া হল না। জেল কর্তৃপক্ষ প্রথমে জানালেন, ছেলে ভাল আছে। সে দিনই পরে জানা গেল ছেলে আর নেই। শেষ দেখাও দেখতে দেওয়া হয়নি মা-কে। মনোনীত চিকিৎসককে দিয়ে ময়না তদন্ত করানোর অনুমতি প্রার্থনা করলেন মা। সেটা মঞ্জুর হলেও রূপায়িত হয়নি। অনেক চেষ্টা করেও সেই তদন্ত-রিপোর্ট সংগ্রহ করতে পারেননি পুত্রহারা জননী। আজীবন লালন করে গিয়েছেন সেই অব্যক্ত ব্যথা।

আরো পড়ুন:  আলিপুর জেলে রোজ রাত্রে দেওয়া হত ইলেকট্রিক শক,কিন্তু একবারও মুখ খোলেননি চারুচন্দ্র বসু

তাঁর মৃত্যুর খবর প্রকাশিত হয় আনন্দবাজার পত্রিকা (‘অমৃতের মৃত্যু’) , অমৃতবাজার পত্রিকা , অ্যাডভান্স , লিবার্টি , বসুমতী , বঙ্গবাণী , ইস্টবেঙ্গল টাইমস , বাংলার বাণী ইত্যাদি সংবাদপত্রে জুন থেকে সেপ্টেম্বর ১৯৩২ এই সময়ের মধ্যে ।

আরো পড়ুন:  চিত্তপ্রিয়র কলার ধরলেন সুরেশ মুখার্জী,পাশ থেকে নির্ভুল নিশানায় সুরেশ মুখার্জীকে গুলি করলেন বিপ্লবীরা

অনিলের কথা এই প্রজন্মের কেউ জানে না।পালন হয় না জন্মদিন-মৃত্যুদিন। দেশপ্রিয় পার্কে আছে অনিল চন্দ্র দাসের আবক্ষমূর্তি। অনিল দাসের বেদির পাথরে অনেক কষ্টে পড়া গেল অনিল চন্দ্র রায়ের স্মৃতিচারণ— “কন্টকবনে বসিয়া হাসিলে/ কুসুমের মধুহাসি। / দীর্ণ বুকের রন্ধ্র ভরিয়া/ বাজাইয়ে গেলে বাঁশি।/মরণের বীণে তুলিলে বন্ধু/জীবনের ঝঙ্কার,/ পথিক বন্ধু, পথের দিশারী/ জানাই নমস্কার।“

আরো পড়ুন:  মেয়ে হয়ে জন্মানোর অপরাধে মুখ দেখতে চাননি বাবা,রাজ্যের প্রথম 'পিঙ্ক ক্যাব ওনার' মানসী মৃধা অনুপ্রেরণার আরেক নাম
বাংলা আমার প্রাণ

বাংলা আমার প্রাণ

"বাংলা আমার প্রাণ" বাংলা ও বাঙালির রীতিনীতি,বিপ্লবকথা,লোকাচার,শিল্প ও যাবতীয় সব কিছুর তথ্য প্রকাশ করে।বাংলা ভাষায় বাংলার কথা বলে "বাংলা আমার প্রাণ"। সকল খবর ও তথ্য আপনাদের কেমন লাগছে,তা আপনাদের কতোটা মন ছুঁতে পারছে তা জানতে আমরা আগ্রহী।যাতে আগামী দিনে আপনাদের আরো তথ্য উপহার দিতে পারি। আপনাদের মতামত ওয়েবসাইটে প্রকাশ করুন,আরো এগিয়ে যাওয়ার পথে এটিই আমাদের পাথেয়। বিন্দু বিন্দুতে সিন্ধু গড়ে ওঠে।আর তাই আজ আপনাদের ভালোবাসা সহযোগিতা ও অনুপ্রেরণায় আমরা এক বৃহৎ পরিবার।এখনো বহু পথ চলা বাকি তাই আপনাদের সাধ্য ও বিবেচনা অনুযায়ী অনুদান দিয়ে এই পেজের পাশে থাকুন। আমাদের পেজে প্রকাশিত সকল তথ্য আমরা একে একে নিয়ে আসছি আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে ভিডিও আকারে।দয়া করে আমাদের পেজ ও ওয়েবসাইট থেকে প্রকাশিত কোনো তথ্য বা লেখা নিয়ে কোনো ভিডিও বানাবেন না।যদি ইতিমধ্যে তা করে থাকেন তবে তা অবিলম্বে মুছে ফেলুন। আমাদের সকল কাজ DMCA কর্তৃক সংরক্ষিত তাই এ সকল তথ্যাদির পুনর্ব্যবহার বেআইনি ও কঠোর পদক্ষেপ সাপেক্ষ।ধন্যবাদ।

Related post

করোনাকে না করো

ভাইরাসের কবলে আজ সারা বিশ্ব,গৃহবন্দী বিশ্ববাসী।বন্ধ দ্বার খুলতে তাই নিজেদের সুরক্ষিত রাখুন,হাত ধুয়ে নেমে পড়ুন এই ভাইরাস দমনে।